ঢাকা বুধবার, ২৪শে জুলাই, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ
বাংলাঃ ৯ই শ্রাবণ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
আরবীঃ ১৮ই মহর্‌রম, ১৪৪৬ হিজরি
  1. Lead 1
  2. Lead 2
  3. অপরাধ
  4. অর্থনীতি
  5. আইন-আদালত
  6. আন্তর্জাতিক
  7. আরো
  8. ইসলামিক
  9. কবিতা
  10. কৃষি সংবাদ
  11. খুলনা
  12. খেলাধুলা
  13. চট্টগ্রাম
  14. ছড়া
  15. জাতীয়

তামিমের বক্তব্যের জবাব দেবেন পাপন

স্পোর্টস ডেস্ক
প্রকাশিত: ৬:৫৪ এ.এম, ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২৩
Link Copied!

ছবি- সংগৃহীত

ভারতে অনুষ্ঠেয় বিশ্বকাপে বাংলাদেশের স্কোয়াডে নেই দেশসেরা ওপেনার তামিম ইকবাল। মূলত ফিটনেস ইস্যুতে বাদ দেওয়া হয়েছে এই ওপেনারকে। যদিও আগেই জানা গিয়েছিল, ‘আনফিট’ কিংবা ‘অর্ধেক ফিট’ কোনো ক্রিকেটারকে বৈশ্বিক আসরে নিয়ে যাওয়ার পক্ষে নন বাংলাদেশের ওয়ানডে অধিনায়ক সাকিব আল হাসান ও কোচ চন্ডিকা হাথুরুসিংহে।

এরপর দিনভর নাটকীয়তা শেষে আকস্মিকভাবে তামিমের বাদ পড়ার পর নানান প্রশ্নের উত্থান হয়েছে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে। তামিমের বিশ্বমঞ্চের শ্রেষ্ঠত্বের লড়াইয়ে না থাকা নিয়ে পক্ষে-বিপক্ষে বিতর্কও চলে।

তবে বুধবার (২৭ সেপ্টেম্বর) নিজের অফিশিয়াল ফেসবুক পেজে এক ভিডিও বার্তায় তামিম জানান, পরিকল্পনা করেই তাকে দল থেকে বাদ দেওয়া হয়েছে।

এই ওপেনারের দাবি, ফিটনেস রিপোর্ট অনুযায়ী বিশ্বকাপ খেলার জন্য তিনি ফিট ছিলেন। একই সঙ্গে তিনি নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে শেষ ম্যাচটির জন্যও ফিজিওর থেকে সবুজ সংকেত পেয়েছিলেন। কিন্তু ফিজিওর সবুজ সংকেত পাওয়া সত্ত্বেও বিশ্বকাপের দলে জায়গা হয়নি বাঁ-হাতি এই ব্যাটারের। আর তার কারণ হিসেবে বোর্ডের এক শীর্ষস্থানীয় কর্তার কথা জানান তিনি।

তামিমের দাবি, সেই কর্তার প্রস্তাবে রাজি না হওয়ায় বিশ্বকাপের দলে জায়গা হয়নি তার। সেই কর্তা প্রস্তাব দিয়েছিলেন, ব্যাটিং পজিশন পরিবর্তন করে খেলা আর আফগানিস্তানের বিপক্ষে না খেলা। সরাসরি সেই কর্তার নাম না নিলেও ধারণা করা হচ্ছে, কর্তাটি আর কেউ নন, তিনি খোদ বোর্ড প্রেসিডেন্ট।

তামিমের ভিডিও বার্তার বিষয়ে প্রেসিডেন্ট নাজমুল হাসান পাপনের কাছে জানতে চাওয়া হয়। তবে আপাতত এই বিষয়ে কিছুই বলতে চাননি পাপন। তবে এক বাক্যে এই বিষয়ে কথা বলার ইঙ্গিত দিয়েছেন তিনি। পাপনের ভাষ্য, বলবো, বলবো…আজকে না।

এর আগে ভিডিও বার্তায় তামিম বলেন, বোর্ডের টপ লেভেল থেকে একজন ফোন করে আমাকে বলল, তুমি বিশ্বকাপে যাবা, কিন্তু তোমাকে তো ম্যানেজ করে খেলতে হবে। একটা কাজ করো, তুমি প্রথম ম্যাচ খেলও না। আমি বলেছি, এখনও ১২ থেকে ১৩ দিন সময় আছে। এই সময়ের মধ্যে তো আমি ভালো অবস্থায় থাকবো। তো কি কারণে খেলবো না? তখন তিনি বললো, আচ্ছা তুমি যদি খেলো তাহলে আমরা পরিকল্পনা করছি, তুমি নিচের দিকে খেলবা।

এই ওপেনারের মন্তব্য, স্বাভাবিকভাবে বুঝতে হবে আমি কোন মানসিকতা থেকে এসেছি। আমাকে যদি হুট করে এ ধরনের কথা বলা হয়। আমার পক্ষে নেওয়া আসলে সম্ভব না। আমি ১৭ বছর ধরে এক পজিশনে ব্যাট করেছি। আমি জীবনে কোনোদিন তিন-চারে ব্যাটিং করিনি। আমি যদি তিন চারে ব্যাট করতাম তাহলে মানিয়ে নেওয়ার মতো ছিল। আমার এ রকম কোনো অভিজ্ঞতা নেই।

তামিম আরও যোগ করেন, আমি এটা ভালোভাবে নেইনি। আমি উত্তেজিত হয়ে গিয়েছিলাম। আমি এটা পছন্দ করিনি। আমি মনে করেছি আমাকে জোর করে করে বাধা দেওয়া হয়েছে।