ঢাকা শনিবার, ১৩ই জুলাই, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ
বাংলাঃ ২৯শে আষাঢ়, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
আরবীঃ ৭ই মহর্‌রম, ১৪৪৬ হিজরি
  1. Lead 1
  2. Lead 2
  3. অপরাধ
  4. অর্থনীতি
  5. আইন-আদালত
  6. আন্তর্জাতিক
  7. আরো
  8. ইসলামিক
  9. কবিতা
  10. কৃষি সংবাদ
  11. খুলনা
  12. খেলাধুলা
  13. চট্টগ্রাম
  14. ছড়া
  15. জাতীয়
আজকের সর্বশেষ সবখবর

পণ্য রপ্তানিতে নগদ সহায়তা আরও কমলো

অনলাইন ডেস্ক:
প্রকাশিত: ৩:৫৭ এ.এম, ১ জুলাই ২০২৪
Link Copied!

স্বল্পোন্নত দেশের কাতার থেকে উত্তরণের প্রস্তুতির অংশ হিসেবে আগামীকাল সোমবার শুরু হওয়া নতুন অর্থবছরে তৈরি পোশাক ও চামড়াসহ ৪৩ খাতের পণ্যে নগদ প্রণোদনা কমানো হয়েছে; যা পণ্য ভেদে কমেছে ২০ থেকে ৫০ শতাংশ পর্যন্ত।

রোববার (৩০ জুন) বাংলাদেশ ব্যাংকের বৈদেশিক মুদ্রা নীতি বিভাগ থেকে এ সংক্রান্ত সার্কুলার জারি করা হয়।

সার্কুলারের নির্দেশনা অনুযায়ী, ২০২৪-২৫ অর্থবছরে ৪৩টি পণ্য রপ্তানির বিপরীতে প্রণোদনা বা নগদ সহায়তা পা‌বে। ২০২৩-২৪-এ ৪৩টি পণ্য সহায়তা পেয়েছিল। নতুন অর্থবছরে নির্ধারিত পণ্যে সর্বনিম্ন দশমিক ৩০ শতাংশ থেকে সর্বোচ্চ ১০ শতাংশ হারে এ নগদ সহায়তা পাবেন রপ্তানিকারকরা। যা ২০২৩-২৪ ছিল ১ শতাংশ থেকে স‌র্বোচ্চ ২০ শতাংশ।

খাত সংশ্লিষ্টরা বলছেন, একদিকে সংকটে ডলারের খরচ কমাতে চাইছে সরকার। অন্যদিকে স্বল্পোন্নত দেশের কাতার থেকে উত্তরণের প্রস্তুতির অংশ হিসেবে এ সহায়তা কমানো হয়েছে।

এর আগে, নগদ সহায়তা কমিয়ে গত জানুয়ারি ও ফেব্রুয়ারিতে জারি করা সার্কুলারে বলা হয়, ২০২৬ সালে স্বল্পোন্নত দেশের তালিকা থেকে বাংলাদেশের উত্তরণ ঘটতে যাচ্ছে। স্বল্পোন্নত দেশ থেকে উত্তরণ হলে কোনো ধরনের নগদ সহায়তা দেওয়া যাবে না। উত্তরণের পর সম্পূর্ণ নগদ সহায়তা একবারে প্রত্যাহার করলে রপ্তানি খাত চ্যালেঞ্জের সম্মুখীন হতে পারে। ফলে বিভিন্ন খাতে নগদ সহায়তার হার অল্প করে কমানোর সিদ্ধান্ত হয়েছে।

১ জুলাই থেকে জাহাজীকৃত রপ্তানিমুখী দেশীয় বস্ত্র খাতে শুল্ক বন্ড ও ডিউটি ড্র-ব্যাকের পরিবর্তে বিকল্প নগদ সহায়তা হবে দেড় শতাংশ। গত ফেব্রুয়ারিতে যা ৪ শতাংশ থেকে কমিয়ে ৩ শতাংশ করা হয়।

ইউরো অঞ্চলে বস্ত্রখাতের রপ্তানিকারকদের প্রণোদনার হার দেড় শতাংশের অতিরিক্ত বিশেষ সহায়তাও আরও কমিয়ে শূন্য দশমিক ৫০ শতাংশ করা হয়েছে। গত ফেব্রুয়ারিতে এই হার ২ শতাংশ থেকে কমিয়ে ১ শতাংশ করা হয়। নীট, ওভেন ও সোয়েটারসহ তৈরি পোশাক খাতের সকল ক্ষুদ্র ও মাঝারি শিল্পে অতিরিক্ত নগদ সহায়তা হবে ৩ শতাংশ। আগে যা ৪ শতাংশ ছিল। বস্ত্র খাতে নতুন পণ্য বা নতুন বাজার সম্প্রসারণ সুবিধা আবার কমিয়ে ২ শতাংশ করা হয়েছে। গত ফেব্রুয়ারিতে যা ৪ শতাংশ থেকে কমিয়ে করা হয় ৩ শতাংশ। তৈরি পোশাক খাতে বিশেষ নগদ সহায়তা দেওয়া হবে শূন্য দশমিক শূন্য ৩ শতাংশ। গত ফেব্রুয়ারিতে যা ১ শতাংশ থেকে কমিয়ে শূন্য দশমিক ৫০ শতাংশ করা হয়।

চামড়ায় ভর্তুকি আরও কমিয়ে ৬ শতাংশ করা হয়েছে। গত ফেব্রুয়ারিতে ভর্তুকি ১০ শতাংশ থেকে কমিয়ে ৭ শতাংশ করা হয়েছিল। সাভারে চামড়া শিল্প নগরীতে অবস্থিত কারখানা এবং সাভারের বাইরে নিজস্ব ইটিপি রয়েছে এরকম কারখানা উৎপাদিত ক্রাস্ট ও ফিনিশড লেদারে রপ্তানি ভর্তুকি দেয় সরকার। এ ছাড়া অন্যান্য সব খাতে ভর্তুকি কমানো হয়।