ঢাকা বুধবার, ২৪শে জুলাই, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ
বাংলাঃ ৯ই শ্রাবণ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
আরবীঃ ১৮ই মহর্‌রম, ১৪৪৬ হিজরি
  1. Lead 1
  2. Lead 2
  3. অপরাধ
  4. অর্থনীতি
  5. আইন-আদালত
  6. আন্তর্জাতিক
  7. আরো
  8. ইসলামিক
  9. কবিতা
  10. কৃষি সংবাদ
  11. খুলনা
  12. খেলাধুলা
  13. চট্টগ্রাম
  14. ছড়া
  15. জাতীয়

ইমরান খানের গ্রেপ্তার আন্তর্জাতিক আইনের লঙ্ঘন: জাতিসংঘের ওয়ার্কিং গ্রুপ

অনলাইন ডেস্ক:
প্রকাশিত: ২:৪৪ পি.এম, ২ জুলাই ২০২৪
Link Copied!

আন্তর্জাতিক আইন লঙ্ঘন করে পাকিস্তানের সাবেক প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানকে কারারুদ্ধ করা হয়েছে বলে জানিয়েছে জাতিসংঘের একটি মানবাধিকার ওয়ার্কিং গ্রুপ। এছাড়া ইমরান খানকে অবিলম্বে মুক্তি দেওয়ারও দাবি জানানো হয়েছে। খবর আল জাজিরার

মঙ্গলবার (২ জুলাই) এক প্রতিবেদনে সংবাদমাধ্যম আল জাজিরা জানিয়েছে, সোমবার (১ জুলাই) জারি করা এক মতামতে জেনেভা-ভিত্তিক ইউএন ওয়ার্কিং গ্রুপ অন আরবিট্রারি ডিটেনশন বলেছে, ‘(এই অবিচারের) উপযুক্ত প্রতিকার হবে ইমরান খানকে অবিলম্বে মুক্তি দেওয়া এবং আন্তর্জাতিক আইন অনুসারে তাকে ক্ষতিপূরণ ও অন্যান্য বিষয়াদির পাশাপাশি একটি কার্যকর অধিকার প্রদান করা।’

ওয়ার্কিং গ্রুপ সিদ্ধান্তে উপনীত হয়েছে যে, তার আটকের কোন আইনি ভিত্তি ছিল না এবং মনে হচ্ছে রাজনৈতিক পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা থেকে তাকে অযোগ্য ঘোষণা করার উদ্দেশ্যে করা হয়েছিল। সুতরাং, শুরু থেকেই, সেই প্রসিকিউশনটি আইনের ভিত্তিতে ছিল না এবং একটি রাজনৈতিক উদ্দেশের জন্য ছিল। জাতিসংঘের এই ওয়ার্কিং গ্রুপ চলতি বছরের ২৫ মার্চ এই মতামত প্রকাশ করে। তবে এটি জনসমক্ষে প্রকাশে আসে সোমবার (১ জুলাই)।

পাঁচজন স্বাধীন বিশেষজ্ঞের সমন্বয়ে গঠিত জাতিসংঘের এই ওয়ার্কিং গ্রুপের মতামত শোনা বাধ্যতামূলক নয়। তবে তাদের এই মতামত বেশ গুরুত্ব বহন করে। ওয়ার্কিং গ্রুপ বলেছে, ইমরান খানকে যে আইনি সমস্যার মধ্যে ফেলা হয়েছে সেটি মূলত তার এবং তার পাকিস্তান তেহরিক-ই-ইনসাফ (পিটিআই) পার্টির বিরুদ্ধে ‘অনেক বৃহত্তর দমন অভিযানের’ অংশ।

এতে বলা হয়েছে, ২০২৪ সালের সাধারণ নির্বাচনের আগে ইমরান খানের দলের সদস্যদের গ্রেপ্তার ও নির্যাতন করা হয়েছিল এবং তাদের সমাবেশগুলিকে ব্যাহত করা হয়েছিল। এটি ‘নির্বাচনের দিনে ব্যাপক জালিয়াতি, কয়েক ডজন সংসদীয় আসন চুরি’ বলে অভিযোগ করেছে ওয়ার্কিং গ্রুপ।

পাকিস্তান সরকার এ বিষয়ে এখনো কোনো মন্তব্য করেনি। দেশটির নির্বাচন কমিশন গত ফেব্রুয়ারির নির্বাচনে কারচুপির অভিযোগ অস্বীকার করেছে।

এর আগে, ২০২২ সালের এপ্রিলে প্রধানমন্ত্রীর পদ থেকে তাকে অপসারণের পর থেকে, ৭১ বছর বয়সী ইমরান খানকে ২০০টিরও বেশি আইনি মামলায় জড়ানো হয়েছে এবং গত বছরের আগস্ট থেকে কারারুদ্ধ করা হয়েছে। তিনি মামলাগুলোকে রাজনৈতিকভাবে উদ্দেশ্যপ্রণোদিত বলে অভিহিত করেছেন এবং তাকে ক্ষমতা থেকে দূরে রাখার জন্য তার রাজনৈতিক শত্রুদের দ্বারা সাজানো হয়েছে।

এই বছরের এপ্রিলে, পাকিস্তানের একটি উচ্চ আদালত একটি দুর্নীতির মামলায় ইমরান খান ও তার স্ত্রীর ১৪ বছরের কারাদণ্ড স্থগিত করে। এই মাসে রাজদ্রোহের দায়ে খানের আরও ১০ বছরের কারাদণ্ড হয়েছিল। তবে অবৈধ বিয়ের অপরাধে তিনি রাজধানী ইসলামাবাদের দক্ষিণে আদিয়ালা কারাগারে রয়েছেন।

বিশ্লেষকরা বলছেন যে, পাকিস্তানের শক্তিশালী সামরিক বাহিনী, যারা কয়েক দশক ধরে সরাসরি শাসন করেছে এবং বিপুল ক্ষমতার অধিকারী, সম্ভবত কয়েকটি মামলার পেছনে রয়েছে তারা।